মেনু নির্বাচন করুন

প্রখ্যাত ব্যক্তিত্ব

হানারচর ইউনিয়নের প্রখ্যাত ব্যক্তিত্বদের নাম

ক্রমিক নং

১্। এস,এ সুলতান টিটুঃ

সাবেক সংসদ সদস্য

 

২।মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ (শিক্ষাবিদ)

Mohammad Abdullah (politician).jpg

প্রফেসর মোহাম্মদ আবদুল্লাহ (জন্ম ১ জানুয়ারী ১৯৩৭) একজন বাংলাদেশী রাজনীতিবিদ ও শিক্ষাবিদ। এক দশক ধরে উচ্চশিক্ষায় অধ্যাপনা করার পরে তিনি ১৯৯১ থেকে ২০০০ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের মনোনীত প্রার্থী হিসাবে ৬৩ নং চাঁদপুর -৪ আসন থেকে সংসদ সদস্য হিসাবে দু’বার দায়িত্ব পালন করেছিলেন। [১] পরে তিনি বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল থেকে পদত্যাগ করেন এবং কর্নেলের নেতৃত্বে লিবারেল ডেমোক্র্যাটিক পার্টিতে যোগ দেন। (অব.) কর্নেল অলি আহমেদের নেতৃত্বে রাজনীতি করেন। [২] তিনি স্থানীয় রাজনীতিতে প্রফেসর আব্দুল্লাহ নামে বেশি পরিচিত।

প্রাথমিক জীবন[সম্পাদনা]

মোহাম্মদ আবদুল্লাহ বর্তমানে চট্টগ্রাম বিভাগের একটি অংশ চাঁদপুর জেলায় একটি বিশিষ্ট মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। তাঁর পিতা আলহাজ্ব নবাব আলী (গাজী) আরবিতে একজন পণ্ডিত ছিলেন, পরোপকারী এবং ইসলামী চিন্তাবিদ, " গাজী " পরিবারের অন্তর্ভুক্ত মুসলিম অভিজাত ছিলেন তাদের পূর্বপুরুষরা ইসলামকে রক্ষায় এবং বর্ধনের ক্ষেত্রে সাফল্যের জন্য তাদের বীরত্বের জন্য "গাজী" উপাধি পেয়েছিলেন।  

মোহাম্মদ আবদুল্লাহ বাজাপ্তি রমনী মোহন উচ্চ বিদ্যালয়ে পড়াশোনা করেন, যেখানে তিনি ১৯৫৩ সালে ম্যাট্রিক পাস করেন। তিনি উচ্চ শিক্ষার জন্য ঢাকায় চলে গমন করেন এবং ১৯৫৫ সালে জগন্নাথ কলেজে আই.কম (ইন্টারমিডিয়েট) পাশ করে এবং বি.কম.সহ দুই ভাইয়ের সাথে সেখানে স্থায়ীভাবে বসবাস শুরু করেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৫৮ সালে (অনার্স) এবং ১৯৫৯ সালে এম.কম ডিগ্রি অর্জন করেন। পরবর্তীকালে তিনি উচ্চতর পড়াশুনার জন্য লন্ডনে যান এবং চার্টার্ড সেক্রেটারি হিসাবে যোগ্যতা অর্জনের জন্য অধ্যয়ন করেন; তিনি ইংল্যান্ডের চার্টার্ড ইনস্টিটিউট অফ সেক্রেটারি থেকে তার সার্টিফিকেট অর্জন করেন এবং ফেলো (এফসিআইএস) হন।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

শিক্ষা জীবন[সম্পাদনা]

রাজনীতিতে প্রবেশের আগে মোহাম্মদ আবদুল্লাহ ছিলেন একজন শিক্ষাবিদ। তিনি ডিগ্রি কলেজগুলিতে শিক্ষকতা করেন এবং প্রায় ১৪ বছর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচালন ও ফিনান্স বিভাগে খণ্ডকালীন অনুষদের সদস্য ছিলেন; তিনি সেখানে পড়াশুনার সময় ১৯৬৪ থেকে ১৯৬৬ সাল পর্যন্ত যুক্তরাজ্যের একটি মাধ্যমিক আধুনিক বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করেছিলেন। তিনি ১৯৯১ থেকে ১৯৯৫ সাল পর্যন্ত চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেটের সদস্য ছিলেন।

রাজনৈতিক জীবন[সম্পাদনা]

১৯৯১ সালে মোহাম্মদ আবদুল্লাহ বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলে যোগদানের মাধ্যমে রাজনীতিতে প্রবেশ করেছিলেন এবং সে বছর বাংলাদেশ সাধারণ নির্বাচনে তিনি রাষ্ট্রপতি এরশাদের অধীনে প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালনকৃত মিজানুর রহমান চৌধুরীকে পরাজিত করে চাঁদপুর -৪ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন। । [৩] তিনি বিএনপির মনোনয়ন নিয়ে চাঁদপুর -৪ থেকে দু’বার নির্বাচিত হয়েছিলেন (১৯৯,, ৬ষ্ঠ এবং ৭ম সংসদ নির্বাচনে)। ২০০১ সালে বিএনপিও তাকে প্রার্থী ঘোষণা করেছিল। তার মনোনয়ন বাতিল হলে এসএ সুলতানকে (পরে এমপি নির্বাচিত) মনোনিত হন। মোহাম্মদ আবদুল্লাহ দল থেকে পদত্যাগ করেন। তিনি স্বতন্ত্র হয়ে নির্বাচনে একাধিকবার প্রার্থী হন। [৩]

কয়েক বছর নিজেকে রাজনীতি থেকে দূরে রাখার পরে তিনি লিবারেল ডেমোক্র্যাটিক পার্টিতে যোগ দিয়েছিলেন। [৪] ২০০৬ সালে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মেগা-জোট লিবারেল ডেমোক্র্যাটিক পার্টিকে ২৯ টি সংসদীয় আসনে প্রার্থী হতে বলেছিল। মোহাম্মদ আবদুল্লাহ চাঁদপুর -৪ এর মনোনীত প্রার্থী ছিলেন। [৫] জুন, ২০১৯ এ মোহাম্মদ আবদুল্লাহ কর্নেলের নেতৃত্বে লিবারেল ডেমোক্র্যাটিক পার্টি (এলডিপি) থেকে পদত্যাগ করেছেন। (অব। ) অলি আহমেদ এবং তার পদত্যাগের বিষয়টি নিশ্চিত করে প্রেসকে একটি বিবৃতি জারি করেছেন। [৬]

 

৩। মোহাম্মদ নাসিরউদ্দীন 

পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিনঅনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
মোহাম্মদ নাসিরউদ্দীন
জন্ম নভেম্বর ১৮৮৮
চাঁদপুর, বিট্রিশ ভারত (বর্তমানে বাংলাদেশ)
মৃত্যু ২১ মে ১৯৯৪ (বয়স ১০৫)
জাতীয়তা বাংলাদেশী
পেশা সাংবাদিকতা
পরিচিতির কারণ সাহিত্য আন্দোলনের পথিকৃৎ,
পত্রিকার সম্পাদক
সন্তান নূরজাহান বেগম (মেয়ে)

মোহাম্মদ নাসিরউদ্দীন (নভেম্বর ১৮৮৮ – ২১ মে ১৯৯৪) মুসলিম বাংলার সাময়িক পত্র, সাংবাদিকতা ও সাহিত্য আন্দোলনের পথিকৃৎ এবং বিশিষ্ট সম্পাদক। তিনি বাংলা ১২৯৫ সনের ৩ অগ্রহায়ণ বর্তমান চাঁদপুর জেলার পাইকারদী গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন।[১]

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

পেশাগত জীবনে প্রথমে তিনি স্বল্প বেতনে স্টিমার কোম্পানির স্টেশন মাস্টারের সহকারী এবং পরে বীমা কোম্পানির প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করেন। এছাড়াও তিনি তার কর্মজীবনে ছিলেন বাংলা একাডেমির ফেলো এবং জাতীয় জাদুঘর (!) ও নজরুল ইনিস্টিটিউটের ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান।

সাংবাদিকতা[সম্পাদনা]

১৯১৮ সালে তিনি কলকাতা থেকে সম্পূর্ণ নিজ উদ্যোগে ও সম্পাদনায় প্রকাশ করেন মাসিক সওগাত পত্রিকা। ১৯৩৩ সালে তিনি আরও প্রকাশ করেন বার্ষিক সওগাত। একই বছর স্থাপন করেন সওগাত কালার প্রিন্টিং প্রেস নামে একটি ছাপাখানা এবং সূচনা করেন সওগাত সাহিত্য মজলিশ এর। এছাড়াও তিনি প্রকাশ করেন সাপ্তাহিক সওগাত(১৯৩৪), সচিত্র মহিলা সওগাত(১৯৩৭), শিশু সওগাত এবং ১৯৪৭ সালে প্রকাশ করেন সচিত্র সাপ্তাহিক বেগম পত্রিকা।

পুরস্কার ও সম্মাননা[সম্পাদনা]

১৯৮৯ সালে তাকে তার জন্মশতবর্ষপূর্তি উপলক্ষে জাতীয়ভাবে সংবর্ধিত করা হয়। তার অন্যান্য উল্লেখযোগ্য পুরস্কার হল একুশে পদকস্বাধীনতা দিবস পুরস্কারবাংলা একাডেমির সম্মাননা পুরস্কার এবং ঢাকা মিউনিসিপ্যাল কর্পোরেশন পদক। উল্লেখ্য যে ১৯৭৬ সাল থেকে কবি সাহিত্যিকদের জন্য প্রবর্তন করা হয়েছে তার নামাঙ্কিত স্বর্ণপদক।

মৃত্যু[সম্পাদনা]

১০৫ বছর বয়সে ১৯৯৪ সালের ২১ মে (৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪০১) ঢাকায় মৃত্যুবরণ করেন।

 

৪। জনাব দেওয়ান মোঃ সফিকুজ্জামান

সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান, চাঁদপুর সদর, চাঁদপুর।

 

৫। জনাব মোঃ নুরুল ইসলাম দেওয়ান ( নাজিম দেওয়ান )

উপজেলা চেয়ারম্যান, চাঁদপুর সদর, চাঁদপুর।